চাঁদপুরে জাটকা সংরক্ষণ সপ্তাহ-২০২৪ উদ্বোধন

সাইদ হোসেন অপু চৌধুরী/ গাজী মোঃ ইমাম হাসানঃ : মৎস্য ও প্রাণী-সম্পদ মন্ত্রী বীর মুক্তিযোদ্ধা মো. আব্দুর রহমান এমপি বলেছেন, ‘ইলিশের উৎপাদন বৃদ্ধিতে সরকার সকল ব্যবস্থা গ্রহণ করছে। ইলিশ বেড়ে উঠার পথে কোনভাবেই যাতে বাধা সৃষ্টি না হয় সেজন্য যা যা করা দরকার আমরা করবো।

এবছর জাটকা সংরক্ষণ সপ্তাহের কর্মসূচি ১১ মার্চ থেকে ১৭ মার্চ  পর্যন্ত পালন করা হচ্ছে। ‘ইলিশ হলো মাছের রাজা, জাটকা ধরলে হবে সাজা’-এ প্রতিপাদ্যে আমাদের এবারের কর্মসূচি। এ সময় ইলিশের অভয়াশ্রম সুরক্ষা এবং জাটকা নিধন বন্ধে কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে। জাটকা আহরণ বন্ধকালে ইলিশ আহরণে জড়িতদের যাতে সমস্যা নয়, সেজন্য তাদের সহায়তা দেওয়া হচ্ছে।’

সোমবার (১১ মার্চ) সকালে চাঁদপুর বড় স্টেশনে জাটকা সংরক্ষণ সপ্তাহ-২০২৪ উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

মন্ত্রী আরও বলেন, শুধুমাত্র প্রশাসন দিয়ে জাটকা নিধন বন্ধ করা যাবে না। মানুষকে জাগ্রত করতে হবে। এটি যদি আমরা করতে পারি, তাহলে এই ভরাযৌবনের চাঁদপুর আবারো ইলিশের যৌবনে ভরে যাবে। যা স্মার্ট- বাংলাদেশ গড়বার বড় ভূমিকা পালন করবে বলে আমরা বিশ্বাস করি। জাটকা সংরক্ষণ সপ্তাহের এই অনুষ্ঠান মূলত একটি সচেতনতামূলক সামাজিক ক্যাম্পেইন। যার মূল লক্ষ্যই হলে মানুষকে জাগ্রত করা। মানুষকে জাগ্রত করতে হবে। এটি যদি আমরা করতে পারি, তাহলে এই ভরাযৌবনের চাঁদপুর আবারো ইলিশের যৌবনে ভরে যাবে। যা স্মার্ট- বাংলাদেশ গড়ার বড় ভূমিকা পালন করবে বলে আমরা বিশ্বাস করি।

মোঃ আব্দুর রহমান এমপি বলেন, ইলিশের উৎপাদন অতীতের সকল রেকর্ড অতিক্রম করেছে। আশা করছি ভবিষ্যতে এটা আরো ব্যাপক আকার ধারণ করবে। ইলিশ উৎপাদনকারী দেশসমূহের মধ্যে আমরা প্রথম স্থানে রয়েছি। জাটকা রক্ষায় ও মা ইলিশ আহরণ বন্ধে জলে, স্থলে ও আকাশপথে বিভিন্নভাবে মনিটর করা হচ্ছে। ইলিশের অভয়াশ্রমে জাটকা নিধনকারীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। যারা কারেন্ট জাল, বেহুন্দী জালসহ অন্যান্য ক্ষতিকর জাল তৈরি করে জাটকা নিধন করে তাদের মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে সাজা প্রদান ও জরিমানা করা হচ্ছে।

মৎস্য ও প্রাণী-সম্পদ মন্ত্রনালয়ের সচিব মোহাৎ সেলিম উদ্দিনের সভাপতিত্বে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন, সমাজকল্যাণ মন্ত্রী ডা. দীপু মনি এমপি, মৎস্য ও প্রাণী-সম্পদ মন্ত্রনালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি শ.ম রেজাউল করিম এমপি, চাঁদপুরের জেলা প্রশাসক কামরুল হাসান, নৌ-পুলিশ চাঁদপুর অঞ্চলের অতিরিক্ত ডিআইজি মোহাম্মদ কামরুজ্জামান, চাঁদপুরের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম বিপিএম পিপিএম, মৎস্য অধিদপ্তরের মহা-পরিচালক সৈয়দ মো. আলমগীর, চাঁদপুর জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নাছির উদ্দিন আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল, চাঁদপুর পৌরসভার মেয়র জিল্লুর রহমান জুয়েল, চাঁদপুর সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম নাজিম দেওয়ান ,চাঁদপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি শাহাদাত হোসেন শান্ত ,জেলা মৎস্য লীগের নেতা ও সাংবাদিক শাহআলম মল্লিক প্রমুখ।অনুষ্ঠানে কোস্ট গার্ড, নৌ পুলিশ, মৎস্য দপ্তরসহ সরকারি বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তা, জনপ্রতিনিধি, রাজনৈতিক নেতা, মৎস্যজীবী নেতাসহ বিভিন্ন পেশার লোকজন আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন।

অনুষ্ঠান শেষে শহরের মোলহেড থেকে প্রধান অতিথি, বিশেষ অতিথিসহ সংশ্লিষ্টদের অশংগ্রহনে মেঘনা নদীতে নৌ র‌্যালী বের হয়। র‌্যালীতে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীসহ শত শত মৎস্যজীবী অংশগ্রহন করেন।

সম্পর্কিত খবর